শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৫:১২ অপরাহ্ন

স্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে চেয়ার ছোড়াছুড়ি- চসিক কাউন্সিলর আহত

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক : / ২৯২ বার পঠিত
আপডেট : বুধবার, ৩১ মে, ২০২৩, ৮:৫৪ অপরাহ্ণ

নুরুল আমিন সোহেল ঃচট্টগ্রামে লালদীঘির পাড়ে জেলা পরিষদের মাঠে ১৪ দলের গণ সমাবেশে দুই পক্ষের সংঘর্ষ ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি হয়েছে। বুধবার (৩১ মে) বিকালে স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরীসহ কয়েকজন আহত হন। তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

দলীয় নেতাকর্মীদের দাবী স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামে ১৪ দলের সমাবেশে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। আজ বুধবার বিকেলে দেশব্যাপী সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপচেষ্টার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ মার্কেটের সামনে আয়োজিত সমাবেশের শুরুতে এ ঘটনা ঘটে।

সে সময় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের দুই কাউন্সিলরের অনুসারী ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল ৫টার দিকে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়, প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর্যন্ত এ সংঘর্ষ চলে। এসময় সমাবেশস্থল ও আশপাশের এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। চট্টগ্রামে ১৪ দলের সমন্বয়ক ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন মঞ্চ থেকে নেমে এলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে এবং সমাবেশ শুরু হয়।

স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামে ১৪ দলের সমাবেশে দুই পক্ষের মধ্যে চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটনায়। মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু বলেন “জামায়াত বিএনপি’র এজেন্ডা বাস্তবায়ন কারীরা আজকে এই ঘটনা ঘটিয়েছে”।

তবে সংঘর্ষে ছাত্রলীগের কেউ জড়িত ছিল না বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর।
তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের কোনো মিছিল ১৪ দলের সমাবেশে যায়নি। আমি নিজেও অসুস্থ। শুনেছি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের দুই কাউন্সিলরের অনুসারীদের মধ্যে স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে সামান্য হাতাহাতি হয়েছে।’ কোন কাউন্সিলরের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে জানতে চাইলে তাদের নাম বলতে অস্বীকৃতি জানান।

চট্টগ্রামে ১৪ দলের সমন্বয়ক খোরশেদ আলম সুজন বলেন, ‘সমাবেশ বানচাল করার জন্য একটি গোষ্ঠী পরিকল্পিতভাবে অপচেষ্টা চালিয়েছিল কিন্তু তা সফল হয়নি। সমাবেশ যথাসময়ে শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

কোতোয়ালী থানার ওসি জাহিদুল কবির বলেন, ‘এম ই এস কলেজের সাবেক ছাত্র নেতা আরশাদুল আলম বাচ্ছু এবং কাউন্সিলর ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরীর গ্রুপের সঙ্গে ধাক্কাধাক্কি হয়। একপর্যায়ে দুপক্ষই ইট পাটকেল ছুঁড়লে কাউন্সিলর ওয়াসিমের মাথায় লেগে তিনি আহত হন। এতে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হলে সিনিয়র নেতারা এবং পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে সমাবেশ চলমান রয়েছে। পুলিশ সর্তক অবস্থানে রয়েছে।’

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরও খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর