1. admin@digonterbarta24.com : admin :
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৯:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

নান্দাইলে শত শত বছরের বংশগত ঐতিহ্যে মৃৎশিল্পীরা নানামুখী সংকটে

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : রবিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৬০ বার পঠিত

ফরিদ মিয়া নান্দাইল ময়মনসিংহ :- মাটি দিয়ে তৈরি দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত হয় এমন জিনিসপত্র ও সৌখিনতার বসে ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কুমারের হাতে অতি যত্ন সহকারে তৈরি যে সকল মাটির জিনিস ঘরের শোকেজে সাজিয়ে রাখা হয় সে গুলোই মৃৎশিল্প নামে পরিচিত।

একটা সময় গ্রাম বাংলার প্রতিটা ঘরের রান্না থেকে শুরু করে খাওয়া-দাওয়া অতিথি আপ্যায়ন সহ প্রায় সব কাজই মাটি তৈরি পাত্র ব্যবহার করা হতো ।
কুমারের হাতে অতি যত্ন সহকারে আগুনে পুড়িয়ে তৈরি করা সমস্ত পাত্র ছিল খুবই সহজলভ্য ও স্বাস্থ্যসম্মত। কিন্তু কালের বিবর্তনে আজ হারিয়ে যেতে বসেছে হাজারো বছরের ঐতিহ্যের এই মৃৎশিল্প।

ময়মনসিংহের নান্দাইলে সাড়ে চার লক্ষ মানুষের মধ্যে উপজেলা সদর ইউনিয়নের সাভার গ্রামের ১৫ টি পাল বংশের পরিবার তাদের বংশ পরস্পরায় মৃৎশিল্পের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে।
বিশ্বের আধুনিকতার ছোঁয়ায় প্লাস্টিক, মেলামাইন, সিরামিক, এ্যালুমিনিয়ামের যুগে তাদের তাদের এই মৃৎশিল্পের জিনিসপত্র তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করা অনেকটা জীবনের সাথে যুদ্ধ করার মতো।

 

মৃৎশিল্পী রত রঞ্জন পাল বলেন, করোনার জন্য গত দু’বছর ধরে মেলা, বান্নাী কোন কিছুই হয় না। জিনিসপত্র তৈরি করেও সে গুলো আর বিক্রি করতে পারি নাই। এতে অনেক লসে পড়েছি। এবারও কি পহেলা বৈশাখের মেলা হয় নি। যা তৈরি করেছিলাম বিক্রি করতে পারি নাই।

সন্ধ্যা রাণী পাল বলেন, আমরা আমাদের বংশের ও নান্দাইলের ঐতিহ্য ধরে রাখতে এই মৃৎশিল্প ধরে রেখেছি। কিন্তু এগুলো এগুলো তৈরি করে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করা আমাদের জন্য কঠিন হয়ে গেছে। মাটির তৈরি জিনিসপত্র তো আর এখন মানুষ কিনে না বললেই চলে। বাচ্চাদের জন্য কিছু খেলনা, পিঠা তৈরির কিছু পাতিল, দই তৈরির জন্য ভেটুয়া ছাড়া তেমন কিছু বানাই না।

এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন কাজল জানান, নান্দাইল উপজেলার একমাত্র কুমার পল্লি এটি। কাজ ধরে রেখেছে। এখানে অন্তত ৪০টি পাল বংশের পরিবার মৃৎশিল্পের কাজ করতো। আধুনিকতার ছোঁয়ায় এই শিল্প এখন ধ্বংসের মুখে। এখন ১৫ টির মতো পরিবার কোন মতে তাদের ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছে। বাকীরা সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন চাকরি সহ ব্যবসা বাণিজ্য পেশায় মনোনিবেশ করেছে।

তিনি আরও বলেন, উপজেলার একমাত্র মৃৎশিল্প টিকিয়ে রাখতে হলে অবশ্যই সরকারি বেসরকারি সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। অন্যথায় অচিরেই এ শিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে।

এবিষয়ে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবুল মনসুর বলেন, এই ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প টিকিয়ে রাখতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য চেষ্টা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Shakil IT Park