1. admin@digonterbarta24.com : admin :
বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৩৪ অপরাহ্ন

তিন দিনের টানা ছুটিতে শ্রীমঙ্গলে ভ্রমণ পিপাসুদের উপচে পড়া ভীড় কক্ষ নেই হোটেল ও রিসোর্টে

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : শনিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১০ বার পঠিত

এম.মুসলিম চৌধুরী,শ্রীমঙ্গল:টানা তিন দিনের ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসুদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে চায়ের রাজধানী খ্যাত শ্রীমঙ্গলে পর্যটন স্পটগুলো । সারাদেশে স্কুল কলেজে পরিক্ষা শেষে হয়েছে। সেই সাথে সাপ্তাহিক ও মহান বিজয় দিবসের টানা তিন দিনের সরকারি ছুটিতে পর্যটকরা সুন্দর্য উপভোগ করতে শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন ভ্রমন স্পটে ও চা-বাগানগুলোতে ভীড় করছেন।

পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে পর্যটন পুলিশ ও শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ সতর্ক রয়েছে। এদিকে দীর্ঘদিন পর এত পর্যটক পেয়ে এ খ্যাতের ব্যবসায়ীরা খুশী। করোনা মহামারি ও দীর্ঘ লকডাউন শেষে শ্রীমঙ্গলে এক সাথে এতো পর্যটক আসায় বিভিন্ন হোটেল-মোটেল,রিসোর্ট, গেস্টহাইজগুলো চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে। প্রতি বছরই এ সময়টায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভ্রমন পিপাসুরা ছুটে আসেন শ্রীমঙ্গলে। মহামারির প্রভাবে এতোদিন পর্যটকরা আসতে পারেনি। এবার ১৬ ডিসেম্বর ও সরকারি ছুটি উপভোগ করতে প্রচুর র্পটক এসেছেন শ্রীমঙ্গলে। পর্যটকদের চাপে শ্রীমঙ্গল শহরের আবাসিক হোটেল ও শহরতলীর রিসোর্টগুলো পরিপুর্ণ হয়ে উঠেছে। থাকার জন্য রিসোর্ট ও আবাসিক হোটেলে কোনো রোম খালিনাই। এমন অবস্থায় আগে থেকে যারা রোম রিজাভ না করে শ্রীমঙ্গলে আসছেন তারা পড়ছেন রাত্রিযাপনের ভিড়ম্বনায়।

শুক্রবার শহরতলির কয়েকটি পর্যটন স্পটে গিয়ে দেখা যায় পর্যটকদের উপচেপড়া ভীড়। চা বাগানের নৈশর্গীক সুন্দর্যে ঘা ভাসিয়ে কেউ কেউ ছবি তোলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আবার অনেকে বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন বধ্যভূমি একাত্তরের মৃত্যুঞ্জয় ভাস্কর্যের ও শহীদ স্মৃতিস্তম্বের পাশে দাড়িয়ে ছবি তোলছেন। লছনা এলাকায় গিয়ে দেখা যায় সেখানেও পর্যটকরা ভীড় করছেন। শ্রীমঙ্গরের প্রবেশ পথ লছনায় সড়কের পাশে নির্মিত চা কন্যার ভাস্কর্যের সামনে লাইন ধরে ছবি তোলার হিড়িক পড়েছে।

ভীড় পড়েছে শহরতলীর বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন ও রমেশের সাতকালার চায়ের দোকানেও। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শ্রীমঙ্গলে ৮০টির মতো ছোট-বড় হোটেল. মোটেল, কটেজ, রিসোর্ট ও গেষ্টহাউজ রয়েছে। হোটেল ও রিসোর্টগুলোতে খালি কোনো রোম নাই। গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে পরিপুর্ণ রয়েছে হোটেল-মোটেল, রিসোর্ট, কটেজ, রেস্টহাউজ ও গেস্টহাইজ এর রোমগুলো ।

এ অবস্থায় নতুন করে যারা আসছেন তারা পড়ছেন থাকার সমস্যায়। চা- বাগান এলাকায় রিসোর্ট না পেয়ে শহরের আবাসিক হোটেলে রোম খোঁজতে হন্য হয়ে ছুটতে দেখা যায় প্রর্যটকদের। শ্রীমঙ্গল পর্যটন সেবা সংস্থার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও শহরতলীর গ্রান্ড সেলিম রিসোর্টের পরিচালক মো. সেলিম আহমদ জানান, উনার রিসোর্টে ২৮টি রোম রয়েছে গত বৃহস্পতিবার থেকে সবকটি রোমই বুকিং ছিল। শনিবার কয়েকটি রোম খালি হলেও নতুন করে বুকিং নেওয়র জন্য অনেকে ফোন করছেন।

ছুটি শেষ হলেও পর্যটক আসবেন বলে ধারণা করছেন তিনি। তিনি আরো জানান, করোনার কারণে দীর্ঘদিন পর্যটক না আসায় তিনি সহ এ ব্যবসার সাথে জড়িতরা এতোদিন লুকসান গুনেছেন। বিজয় দিবসের দিন থেকে রেকর্ড পরিমান পর্যটক শ্রীমঙ্গলে আসায় পর্যটন ব্যবসার সাথে জড়িতরা করোনাকালে ক্ষতি কিছুটা হলেও কাঠিয়ে উঠতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD