1. admin@digonterbarta24.com : admin :
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নিরাপদ সড়ক উপহার দেয়া আমাদের সকলের দায়িত্বঃ উপ-পরিচালক জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস সিএমপি’র ট্রাফিক বিভাগের লিফলেট বিতরণ খামারপাড়া বিশ্বলতা জনকল্যাণ বৌদ্ধ বিহারে ৩২তম দানোত্তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত বেগম খালেদা জিয়া’র সুস্থতা কামনায় গাজীপুর মহানগর ছাত্রদলের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল নলছিটিতে আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস পালিত ফ্রেন্ডশিপ’র উদ্যোগে প্যারাভেট প্রশিক্ষণের সনদ বিতরণ রাঙ্গামাটিতে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত ভুলতা জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে হাইওয়ে পুলিশ ফাড়ির নানা কর্মসূচি পালিত শ্রীমঙ্গলে নিরাপদ সড়কের দাবিতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী শ্রীমঙ্গলে রামকৃষ্ণ সেবা আশ্রমে মৌন প্রতিবাদ

ত্রিশালের সেই জমিদারবাড়িটি দর্শনীয় হয়ে উঠেছে

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : শনিবার, ৯ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩১ বার পঠিত

দ্বীপজয় সরকার, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ মোগল আমলের জমিদার বাড়িটি এখন হয়ে উঠেছে মানুষের পদচারণা। ময়মনসিংহের ত্রিশালের কানিহারী ইউনিয়নের আহাম্মদাবাদ (সেনবাড়ী) গ্রামে অবস্থিত দৃষ্টিনন্দন এই রাজবাড়ি। নকশা ও কারুকার্যের পরিবর্তন হলেও ত্রিশালের ঐতিহ্যের নিদর্শন হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে এই পুরাতন জমিদারবাড়ি। কিছুদিন আগেও এর অবস্থা ছিল বেহাল।

প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সুদৃষ্টির ফলে এর সংস্কার কাজ করা হয় এবং এই রাজবাড়িটি দৃষ্টিনন্দন রূপ ফিরে পায়। এটি এখন দর্শনার্থীদের জন্য দেখার মতো জায়গা হয়ে উঠেছে। কারণ এটি যেমন দৃষ্টিনন্দন তেমনই রয়েছে এর সমৃদ্ধ ইতিহাস।

রাজবাড়িটি ব্রহ্মপুত্র নদের খুব কাছে হওয়ায় দর্শনার্থীরা একসঙ্গে রাজবাড়ি ও ব্রহ্মপুত্র নদ উপভোগ করতে পারেন। এ এলাকায় যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো হওয়ার ফলে নিয়মিতই দর্শনার্থীরা মোগল আমলের এ রাজবাড়ি দেখতে আসেন। ঈদ সহ বড় কোনো উৎসব এলে দর্শনার্থীদের ভিড়ে মুখরিত থাকে এ এলাকা।

প্রায় দেড়শ বছরের পুরনো ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কানিহারী ইউনিয়নে সেনবংশের হাতে গড়ে ওঠা জমিদারবাড়ির মোগল আমলের নকশা ও কারুকার্যের পরিবর্তন ঘটানো হয়েছে। ভেঙে ফেলা হয়েছে কয়েদখানাসহ নিপুণ হাতে গড়া শৈল্পিক অনেক স্থাপনা। নকশা ও কারুকার্যের পরিবর্তন করা হলেও ঐতিহ্যের সাক্ষী হয়ে আরও বহু বছর দাঁড়িয়ে থাকবে দৃষ্টিনন্দন এই জমিদারবাড়ি।

একসময় ১০ একর জমির ওপর গড়ে ওঠা ওই জমিদারবাড়ির কারুকার্য ও নির্মাণশৈলী দেখে দর্শনার্থীরা মুগ্ধ হন।

ব্রিটিশ শাসনামলে ল্যান্ড লর্ড সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক সুবেন্দ্রনাথ সেন এ তল্লাটের সরাসরি খরিদ্দার ছিলেন। সেনদের জমিদারির শেষদিকে দেবেন্দ্রনাথ সেনের ছেলে রবীন্দ্রনাথ সেন জমিদারির দায়িত্ব পালন করেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার আগেই অর্থাৎ সত্তরের দশকের দিকে রবীন্দ্রনাথ সেনের ছেলে স্বাধীনাকান্ত সেন ও বাদল সেন জমি বিক্রি শুরু করেন।

১৯৭৫ সালের দিকে মূল ভবনটি ময়মনসিংহের শম্ভুগঞ্জের পীরের কাছে বিক্রি করে তিনি সপরিবারে ভারত চলে যান। বর্তমানে দৃষ্টিনন্দন এ জমিদারবাড়ির মালিকানায় রয়েছেন ঢাকার ফার্মগেটের খাজাবাবা জাকির শাহ কুতুববাগী।

তবে ঐতিহ্যের সাক্ষী এ বাড়ির নকশা ও কারুকার্যের পরিবর্তন-পরিবর্ধন করায় পর্যটকদের প্রাচীন ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে অনেক কিছুই জানার সুযোগ থাকবে না বলে মত প্রকাশ করেন পর্যবেক্ষকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD