1. admin@digonterbarta24.com : admin :
মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মিরসরাইয়ে শিল্প নগর পরিদর্শনে সৌদি আরবের মন্ত্রীর সেনবাগে জিতেনি নৌকার কোন প্রার্থী চট্টগ্রামের সংবাদপত্র-শিল্পসাহিত্য ও সংস্কৃতির মহীরুহ বটবৃক্ষ এম এ মালেকঃ শুকলাল দাশ স্থানীয় লক্ষ্যভিত্তিক গুচ্ছগ্রাম বাস্তবায়নে ভূমি মন্ত্রণালয় চট্টগ্রামে জেনারেল হাসপাতালে নন কোভিড ইউনিটে আইসিইউ বেড উদ্বোধন দর্শনা থানা পুলিশের অভিযানে মাদকদ্রব্য সহ ২ (দুই) কেজি গাঁজা উদ্ধার কেশবপুরে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ২২ জনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ঝালকাঠিতে ১০০ টাকায় ১৪ তরুণ-তরুণীর পুলিশে চাকরী আন্তঃবাহিনী কাবাডি প্রতিযোগিতা-২০২১ শুরু বিএমপি কমিশনারের সাথে টেলিভিশন চিত্র সাংবাদিক এসোসিয়েশনের সৌজন্য সাক্ষাৎ

রেল সংযোগ আসবে পাহাড়েও!

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১
  • ৮৫ বার পঠিত

আরিফুর রহমানঃ পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দররবানে আগামীতে রেল সংযোগ দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়ে রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা রেলপথ মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে দেশের সব জেলাকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনার নির্দেশনা দিয়েছেন। এ লক্ষ্যে দেশের তিন পার্বত্য জেলায় রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। তিনি বলেন, দেশের আপামর জনসাধারণকে স্বল্প খরচে নিরাপদ ও স্বাচ্ছন্দ্যময় পরিবহন সেবা প্রদানের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

(২৩ জুন ২০২০ইং) সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে নুরুন্নবী চৌধুরীর (ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য) লিখিত প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান মন্ত্রী। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংসদের বৈঠকে প্রশ্নোত্তর পর্ব টেবিলে উত্থাপিত হয়।

নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়েতে একটি মহাপরিকল্পনা (মাস্টার প্ল্যান) রয়েছে। এতে ২৩০টি নতুন প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত। প্রকল্পসমূহ ছয়টি পর্যায়ে (জুলাই ২০১৬ থেকে জুন ২০৪৫ পর্যন্ত) বাস্তবায়িত হবে। চতুর্থ পর্যায়ে (২০৩১-২০৩৫) দেশের তিন পার্বত্য জেলায় রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর পরিকল্পনা করা হয়েছে।

অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা সম্পদে ভরা খাগড়াছড়ি জেলার সাথে চট্টগ্রাম তথা দেশের অন্যান্য অঞ্চলের সহজ, সস্তা ও আরামদায়ক ভ্রমন ও মালামাল পরিবহনের জন্য রেল যোগাযোগ খুবই গুরুত্বপুর্ন।

হয়তো কেউ কখনো ভেবেই দেখেননি যে চট্টগ্রামের নাজির হাট রেল স্টেশন থেকে মাত্র ৩৮ কিমিঃ নতুন রেল লাইন(নাজিরহাট-ফটিকছড়ি-মানিকছড়ি-মাটিরাংগা-খাগ ড়াছড়ি)

এবং

মীরসরাই চিনকি আস্তানা রেলস্টেশন থেকে মাত্র ৩৫ কিমিঃ( চিনকি আস্তানা-রামগড়- -মাটিরাংগা-খাগড়াছড়ি) নতুন রেল লাইন নির্মান করলে দুই দিক থেকে খাগড়াছড়ি শহর যথাক্রমে চট্টগ্রাম ও ঢাকাসহ অন্যান্য জেলার সাথে রেল কানেক্টেড হতে পারে।

অনেকেই হয়তো ভাববেন যে এই প্রকল্পে অনেক খরচ হবে পাহাড় কেটে রেল লাইন করতে গিয়ে। কিন্তু না এই দুইটি রুটেই ছোটবড় টিলা রয়েছে তাই কাটিং এন্ড ফিলিং সিস্টেমে বাইরে থেকে কোন মাটি কিনতে হবে না এবং বেশিরভাগ সরকারি জায়গা হওয়াতে জমি অধিগ্রহনের খরচও অনেক কম হবে তুলনামুলক। আবার পাহাড়ি মাটির ভারবহন ক্ষমতা বেশি হওয়াতে সয়েল স্ট্রেন্থিং বাবদও খরচ কম হবে যা সমতলে বেশি হয়ে থাকে। তবে এক্ষেত্রে একটি বড় প্রতিবন্ধকতা রয়েছে তা হল দুইটি রুটের ক্ষেত্রেই মাটিরাংগা থেকে খাগড়াছড়ি যাবার পথে শেষ ৩ কিমিঃ সুউচ্চ পাহাড় রয়েছে। সেখানে ৩ কিমি লম্বা একটা টানেল নির্মিত হতে পারে অথবা টানেল নির্মানের খরচ অতিরিক্ত হলে ৩ কিমি আগেই শেষ স্টেশন নির্মান হতে পারে। তবে নদীর তলদেশের টানেলের তুলনায় মাটির পাহাড়ের ভেতর দিয়ে টানেল নির্মান খরচ

তুলনামুলক অনেক কম। সরকার যদি দুটি রুট-ই নির্মান করতে চায় সেক্ষেত্রে যেকোন একটি রুটের দৈর্ঘ্য প্রায় ৬ কিমিঃ কমে আসবে কারন দুটি রুট মাটিরাংগা জংশনে মিলিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD