1. admin@digonterbarta24.com : admin :
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পূজা মন্ডবে পরিদর্শনে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান জনি দেশব্যাপি সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে কড়া হুশিয়ারি জানিয়ে পাহাড়তলী থানা ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল গুইমারায় চার দিন ধরে নিখোঁজ ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী শানু মিয়া বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২১ উপলক্ষে বাঘাইছড়িতে র‍্যালী ও আলোচনা সভা উদযাপন চট্টগ্রামে হরতাল প্রত্যাহার নিউ ইয়র্কে এইচআরপিবি’র মতবিনিময় সভা, প্রবাসীদের সম্পত্তি রক্ষায় ট্রাইব্যুনাল গঠনের দাবি মানিকছড়িতে যুবলীগের কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামে মণ্ডপে হামলা, হরতালের ডাক আড়িয়াব শ্বারদীয় দুর্গা পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন মেয়র হাছিনা গাজী বাংলাদেশ পুলিশ ক্রিকেট ক্লাবের নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

অনলাইন বিজনেস এখন অন্যতম প্লাটফর্মের নাম”-ফাতিহা জান্নাত

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ২১৭ বার পঠিত

দিগন্তেরবার্তা২৪,ডেস্কঃ বরিশালের মেয়ে “ফাতিহা জান্নাত”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৮ সাল থেকে চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে “ফাতিহা জান্নাত”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন বরিশাল সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।বরিশালের মেয়ে “ফাতিহা জান্নাত” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন দিগন্তের বার্তা ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?

আসসালামু আলাইকুম।আমার নাম ফাতিহা জান্নাত।জিতু হচ্ছে ডাক নাম যদিও আমার পছন্দ না!বরিশালের মেয়ে আমি।জন্মস্থান এবং বড় হওয়া ঢাকাতেই।লেখাপড়ার পাশাপাশি উদ্যোক্তার খাতায় নাম লেখাতে এখন ব্যস্ত আমি।তাছাড়া দীর্ঘদিন যাবত যুক্ত আছি মিডিয়া এবং নিউজের সাথে।কাজ করছি-মেয়েদের ব্যাগ,হিজাব,ইলেকট্রিক গ্যাজেট আর বেকারি ফুডস নিয়ে।

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?
লেখাপড়ার পাশাপাশি নিজের উদ্যোগে কিছু একটা করার তীব্র ইচ্ছা ছিল একেবারে ছোটবেলা থেকেই!শুধু সুযোগের খোঁজে ছিলাম।অবশেষে মহান আল্লাহর নাম নিয়ে উদ্যোক্তা হওয়ার মনোভাব নিয়ে নেমে পড়লাম নতুন সংগ্রামে।নিজের পরিচয়ে নিজের জায়গা সমাজে করে নিতেই এই উদ্যোগ।

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?
অনলাইন বিজনেস এ আইডল হিসেবে বলতে গেলে সেই মানুষগুলোর কথা বলতে হবে যারা আমাকে সঠিক পথ দেখিয়েছেন এবং সফলতার দ্বারপ্রান্তের জানান দিয়েছেন!এক্ষেত্রে সবার আগে পরিবার অর্থাৎ বাবা,মা।তাদের অবদান অনস্বীকার্য!তারপর শ্রদ্ধেয় বড় ভাই-নাঈম ভাইয়া।তার কাছ থেকেই এই বিষয়ে জানতে ও বুঝতে শিখেছি।তারপর বলবো শামীমা স্বর্ণা আপু এবং নীল ভাইয়ার কথা!এত্ত সুন্দর করে প্রতিটা জিনিস এমনভাবে সহজ করে দিয়েছেন যে কঠিন বলতে আর কিছুই থাকতো না!আর তাদের সবার মাঝে আমার মামার (রাজু) কথা না বললেই নয়!!আর কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী তো আছেই!তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফল আজ আমার এই অবস্থান।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
সফলতা আসলে যতই আসবে ততই আরো পাওয়ার ইচ্ছা বাড়বে!তবে অনলাইন জগতে এই অবধি অনেক মানুষের কাছ থেকে যে বিশ্বাস,শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা পেয়েছি এটাই আমার সবচেয়ে বড় সফলতা।ব্যবসায়ীক দিক থেকে বলতে গেলে আলহামদুলিল্লাহ প্রতি নিয়ত সফলতার দিকে এক পা এক পা করে এগিয়ে যাচ্ছি।

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হলো-দেশের স্বার্থে নিজের সর্বস্ব দিয়ে এগিয়ে যাওয়া এবং সফল উদ্যোক্তাদের নামের মাঝে জায়গা করে নেয়া!

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলুন?
আমি ২০১৮ সালে মগবাজার গার্লস হাই স্কুল থেকে এস.এস.সি এবং ২০২০ সালে ইস্পাহানী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইচ.এস.সি পাশ করি।বর্তমানে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ভর্তি পরীক্ষার্থী।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
শুরু থেকেই অনেক বাঁধা এবং সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছে!তবুও দমে যাই নি,হেরে যাই নি।বারবার ঘুরে দাঁড়িয়েছি!মনোবল শক্ত রেখেছি।কারন আমি জানতাম সময় বদলাবেই!তাই এই সময়টার জন্যই সেই সময় ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করেছি।আজ তার সুফল পাচ্ছি!

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি কি?
সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে  নতুনত্ব রাখার চেষ্টা করছি!আমার নতুন প্রোডাক্টগুলো হচ্ছে-বিভিন্ন ধরনের হ্যান্ড ব্যাগ,রকমারি হিজাব এবং অত্যাধুনিক কিছু গ্যাজেট!

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?
মূলত এখন বাংলাদেশসহ পুরো পৃথিবীতেই করোনার জন্য থমথমে পরিস্থিতি!এমন অবস্থায় সবাই অনলাইন পদ্ধতিকেই বেছে নিচ্ছেন।কারন এটা অনেক নিরাপদ সবার জন্যই।তাই আমরা উদ্যোক্তারাও চাই এই মহামারীর সময়ে নিজেদের সবচেয়ে ভালো পণ্যটাই ক্রেতার হাতে তুলে দিতে!যদিও এখনো সবাই সম্পূর্ণভাবে বিশ্বাস করে উঠতে পারেন নি তবুও এই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ!

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?
পরিশেষে এতোটুকুই বলতে চাই-উদ্যোক্তাদের উপর ভরসা রাখুন!কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর জন্য সবাইকে একই ভাবে মেপে দেখবেন না।উদ্যোক্তাদের উদ্দেশ্যে বলবো পথভ্রষ্ট হবেন না!নিজের উপর আস্থা রাখবেন।সমালোচনায় কান দেবেন না।নিজের লক্ষ্যে অটুট থাকবেন।আর ক্রেতাদের বলছি-“বিশ্বাস করা আপনাদের দায়িত্ব,বিশ্বাস বজায় রাখা আমাদের দায়িত্ব!”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD