1. admin@digonterbarta24.com : admin :
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নগরীতে চোলাইমদ সহ গ্রেফতার ১ মেজর সিনহা হত্যা মামলার তৃতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু প্রধানমন্ত্রীর আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করায় আকতারের ৭ বছরের কারাদণ্ড যে কোনো সময় খালেদার মুক্তি বাতিল করতে পারে সরকার ফেনীর সোনাগাজীতে আ’লীগের মেয়র প্রার্থীর সমর্থকসহ ১৪ জন আটক রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে এলোপাতাড়ি গুলি, ৫ জন নিহত জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী মানবাধিকার ফাউন্ডেশন থেকে প্রত্যয়ন পত্র তুলে দেন সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী ডেমরা প্রেস ক্লাব স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক গাড়িচালক মালেক কে ৩০ বছর কারাদণ্ড কক্সবাজারের মহেশখালী ও কুতুবদিয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ২

ঢাকার সফল সংগ্রামী নারী উদ্দ্যেক্তা “জান্নাতুল ফেরদৌস জুঁই”

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ৯০৪ বার পঠিত

দিগন্তেরবার্তা২৪,ডেস্কঃ ঢাকার মেয়ে “জান্নাতুল ফেরদৌস জুঁই“।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৮ সাল থেকে চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” জান্নাতুল ফেরদৌস জুঁই “।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন ঢাকার সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।ঢাকার মেয়ে ” জান্নাতুল ফেরদৌস জুঁই ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন দিগন্তের বার্তা ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?

আমি জান্নাতুল ফেরদৌস জুঁই। ঢাকাতে অবস্থান করছি।আমি পড়াশোনার পাশা পাশি অনলাই বিজনেস করছি, সততা আমার বিজনেসের মূল ভিত্তি।আমার দুর্বলতা হচ্ছে আমি খুব কাজ ভালোবাসি কাজ করতে গেলে দিন-রাতের হুঁশ থাকে না।

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?

শখের বসেই উদ্দ্যোক্তা হয়ে ওঠা। নিজের জমানো সামান্য মূলধন নিয়ে বিজনেস শুরু করি,এবং ক্রেতাদের কাছ থেকে মোটামুটি ভালই রেসপন্স পাই এবং হাটি হাটি পা পা করে সামনে এগিয়ে যাচ্ছি সততার সাথে। আমি অলসতা মোটেও পছন্দ করিনা।সব সময় নিজেকে ব্যাস্ত রাখতে চেষ্টা করি।

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?

আমি  অনলাইন বিজনেসে আমার বাবাকে আইডল হিসেবে দেখেছি।আমার বাবা একজন সৎ ও পরিশ্রমী বিজনেসম্যান ছিল।তিনি ফার্নিচারের বিজনেস করতো। গ্রামীণফোনের কর্মকর্তা একজন কাস্টমার আব্বুর কাছ থেকে কিছু ফার্নিচার নিয়ে, কোন একটি অনলাইন পেইজে রিভিউ দিয়ে আব্বুর মোবাইল নাম্বার সংযুক্ত করে, আমাদের ফার্নিচার Sanjid & jui mart  এর সুনাম করে একটি পোষ্ট দিয়ে ছিল।তখন অনলাইন বিজনেস ততটা প্রসার না থাকা সত্বেও আব্বু তার ফার্নিচারের অনেক অর্ডার পেয়েছিল।সেই থেকে আমি সাহস পেয়েছি।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?

কতটুকু সফলতা অর্জন করতে পেরেছি জানিনা কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ! অনেক কাষ্টমারের অনুপ্রেরণা ও ভালবাসা পেয়েছি বলে মনে করি, আমি সবসময় আমার ব্যাবসায় সৎ থাকতে চেষ্টা করেছি এবং কাষ্টমারদের ১০০% ভাল প্রডাক্ট ও সার্ভিস দিতে চেষ্টা করেছি।সে কারনে আলহামদুলিল্লাহ! বাংলাদেশ ও দেশের বাহিরে Juirisha door যথেষ্ট সুনাম অর্জন করতে পেড়েছে।সেই সাথে আমার পরিবারে সকলের সাপোর্ট ও হাজার হাজার ক্রেতার ভালবাসা এবং অনুপ্রেরণায় এগিয়ে যাচ্ছি।

আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

আমি নিজে একজন সফল উদ্দোক্তা হিসেবেই সীমাবদ্ধ না থেকে দেশের কর্মহীন নারী ও পুরুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে,দেশের দারিদ্র বিমোচন করতে সামান্য হলেও সাহায্য করবো।ইনশাহ আল্লাহ।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলুন?

আলহামদুলিল্লাহ, আমি ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি হতে ইংরেজীতে চার বছরের অনার্স কোর্স শেষ করলাম।আমি পরাশুনা, বিজনেসের পাশাপাশি  বিভিন্ন সামাজিক কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি।বর্তমানে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন BHRCর বৃহত্তম ঢাকা বিভাগে, স্যোশাল ওয়ার্কার হিসেবে  আন্তর্জাতিক সম্পাদিকা পদে কাজ করছি।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?

পড়াশোনার পাশাপাশি আমার এ অনলাইন বিজনেস করতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। রাত জেগে কাস্টমারদের মেসেজের এন্সার দেওয়া,পন্য ডেলিভারীর জন্য তৈরী করা,পাশাপাশি পড়াশুনা করা,ভার্সিটিতে  যাওয়া,এক্সামের জন্য তৈরী হওয়া,পোডাক্ট কালেক্ট করা, চেক করে রাখা চারটি খানেক কথা নয়।বহু ত্যাগ ও পরিশ্রমের বিনিময়ে Juirishar door এর আজকের এই সফলতা। পরিশ্রম- ই সৌভাগ্যের চাবি কাঠি।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি কি?

আমি ক্লোথিন নিয়ে কাজ করি। প্রথম প্রথম আমার প্রডাক্টের আইটেম ড্রেস ছিল।বর্তমানে Juirisha door শিফন শাড়ীর জন্য জনপ্রিতা অর্জন করেছে।ফ্লোরাল শিফন শাড়ীর সাথে ফ্লোরাল কারচুপি  অর্গেন্জা,এক কালার অর্গেন্জা কারচুপি  শাড়ী,ফ্লোরাল জর্জেট,সেডেট পিউর জর্জেটএক কালার জর্জেট ,ফ্লোরাল প্রিন্টের সুতি বুটিক টু পিস,থ্রি পিস, ব্লাউজ, ডিজাইনার কুর্তি,লাখনো কুর্তি,হাতের কাজের দেশীয় সুতি থ্রি পিস,শাড়ী,তাঁতের শাড়ী,ব্রাইডার দোপাট্টা ইত্যাদি।এছাড়াও আমি মালায়শিয়ার কিছু অরিজিনাল ব্যান্ডের পন্য ও চায়নার কিছু এক্সেসারিজ পন্য নিয়ে কাজ করছি।

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?

বর্তমানে কোভিট ১৯ চলাকালীন সময় আমরা থেমে নেই।কোভিট শতর্কতা মেনে সেনেটাইজ করে পন্য ডেলিভারি দিচ্ছি।কোভিট এর কারনে পন্য আমদানিতে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটলেও আল্লাহর অশেষ রহমতে সফলতার সাথে কাজকে এগিয়ে নিয়েছি।কষ্ট হলেও পোডাক্ট কাস্টমারের দাড়প্রান্তে পৌছে দিতে পারছি।

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?

আমি যথেষ্ট চেষ্টা করি ক্রেতাদের সুবিধা অসুবিধা গুলো বুঝতে। আমার অনুরোধ থাকবে,ক্রেতারাও যেন আমাদের সুবিধা- অসুবিধা গুলো বুঝতে চেষ্টা করে।আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন,আমি যেন আপনাদের সর্বোত্তম পন্যটি দিতে পারি। জীবনের ছোট- বড় ভুল গুলো পিছনে ফেলে সামনে সততার সাথে এগিয়ে যেতে পারি।আমার প্রেরনা আমার পরিবার ও ভালবাসার ক্রেতাসাধারণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD