1. admin@digonterbarta24.com : admin :
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন

মেকআপ জগতে সফল উদ্দ্যোক্তা “জিনিয়া সুলতানা মৌ”

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন, ২০২১
  • ২৮৬ বার পঠিত

দিগন্তেরবার্তা২৪,ডেস্কঃ ঢাকার মেয়ে “জিনিয়া সুলতানা মৌ”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৬ সাল থেকে চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” জিনিয়া সুলতানা মৌ “।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন ঢাকার সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।ঢাকার মেয়ে ” জিনিয়া সুলতানা মৌ ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন দিগন্তের বার্তা ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?
আসসালামু আলাইকুম আমার নাম জিনিয়া সুলতানা মৌ। একজন মেকাপ আরটিস্ট সাথে অনলাইন বিজনেস করে যাচ্ছি। সাথে একজন মা এবং সহধর্মিণী। আমি এয়ারপোর্টে এর কাছে আশকোনা এলাকা তে থাকি।

আমার পেজ : Glitter Corner By Mou

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো?

আমি আমার স্টুডেন্ট লাইফ থেকে কখনোই বসে থাকিনাই, কিছু না কিছু সবসময় করে গিয়েছি।
আসলে আমি গত ৬ বছর ধরে অনলাইন বিজনেস করি। শুরু টা করি এভাবে,আমি অনলাইন এ জব করতাম একটা সময়, সেখান থেকে মাসে প্রায় ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা সেলারি আসতো কমিশন হিসেবে। তখন চিন্তা করলাম অন্যের জিনিস আমি সেল দিয়ে দিতে পারছি, নিজের জিনিস নিয়েই কাজ করা যাক।  ড্রেস এবং কস্মেটিক্স প্রোডাক্টস নিয়ে আমার কাজ৷ কিন্তু গত ৩ বছর আগে আমার বিজনেস অফ রাখতে হয় আমার প্রেগ্নেন্সির কারনে৷ এর পর বেবি হওয়ার পর যখন কাজে আবার ব্যাক করলাম তখন বুঝতে পারি অনলাইন কম্পিটিটর অনেক বেড়ে গিয়েছে। সাথে অসাধু ব্যাবসায়ীর এর অভাব নেই। এবং আমার বেবির বয়স তখন ৭ মাস চলে, তখন আমার পক্ষে ড্রেস এবং কস্মেটিক্স ইম্পোর্ট করা আবার ওগুলো নিয়ে কাজ করা অনেক টাফ হচ্ছিলো। তখন চিন্তা করলাম যেহেতু আমি মেকাপ এর A to Z সব জানি তাহলে এটা নিয়ে কাজ করা যাক৷ ছোটবেলা থেকে আমার আম্মু এবং খালামনি দের পার্লার দেখে এসেছি। সেই হিসেবে সব ই আমার জানা ছিলো  । কিন্তু আমার কখনও ইচ্ছা ছিলনা আমি এই প্রফেশন এ আসবো। যেহেতু আমি কাজ ছাড়া থাকতে পারছিলাম না তখন আমি এই প্রফেশন টাই বেছে নিয়েছি৷ তখন থেকে আমার আজব্দি আমি থেমে থাকিনি। এটাই আমার বড় প্রফেশন হয়ে গিয়েছে৷ এখন আমি নিজে মেকাপ করি, এবং অন্যকে শিখাই একজন ট্রেইনর হিসেবে, সাথে অনলাইন বিজনেস ও আছে এখন,

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?

আইডল অনেক বড় একটা ব্যাপার। যখন আমি ৬ বছর আগে বিজনেস শুরু করি তখন আমার চিন্তা ভাবনাই আমার আইডল ছিলো। ৬ থেকে ৭ বছর আগে অনলাইন বিজনেস এর ব্যাপারে মানুষ এর এখনের মত এত বেশি ধারনা ছিল না। আমি যখন বিজনেস শুরু করি তখন আমার আশে পাশের বেশির ভাগ মানুষ ই মনে করেছে আমি টাকা জলে ফেলবো। পাশে পেয়েছিলাম আমার এক খালামনি যে আমার ফ্রেন্ড এর মত ছিল। তাকে নিয়ে শুরু করেছিলাম। আর যদি বলি সত্যিকারের আইডল এর কথা- – সে এক জন ই আমার  ‘মা’। কারন মেকাপ প্রফেশন এ নামার আগে আমার কিছু খারাপ সময় এর সম্মুখিন হতে হয় অই সময় এ আমি যেন কোন অবস্থায় ভেংগে না পরি এ জন্য উনি আমাকে সবসময় সাহস দিয়ে গিয়েছেন৷ সে আমাকে বুঝিয়েছে ‘ আমি মুল্যহীন না, আমি অনেক মুল্যবান ‘  আমার মা একজন সরকারি ব্যাবসায়ী দশ জন পুরুষের চেয়েও আমার মা মেন্টালি স্ট্রং আলহামদুলিল্লাহ  আমার ফিউচার আমি নিজেকে আমার মায়ের মত স্ট্রং দেখতে চাই। আমার আইডল আমার মা

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?

সফলতা অবশ্যই অনেক বেশি লাভ করেছি বলে আমি মনে করি। কারন ঘরে বসে ৬ বছর ধরে বিজনেস রান করে যাচ্ছি,,উপার্জন করে যাচ্ছি, এত গুলো মানুষ আমাকে চিনতে পেরেছে একজন ব্যাবসায়ী হিসেবে, এত গুলা মানুষ এর ভালোবাসা পাচ্ছি। এগুলো তো আমার জন্য অনেক বড় সফলতা আলহামদুলিল্লাহ আর এখন আমার ফুল ফ্যামিলি আমাকে সাপোর্ট করে যাচ্ছে আমার কাজ এর জন্য তো আমাকে অবশ্যই সফল বলা চলে।

আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

ভবিষ্যতে ইচ্ছে আছে নিজের মেকাপ স্টুডিও আরোও বড় করবো। স্টুডেন্ট দের মেকাপ শিখাবো, নিজেকে একজন বড় ট্রেইনার হিসেবে দেখবো।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা যদি বলতেন?

আমি গ্রাজুয়েশন ( BBA) কম্পলেট করেছি ২০১৫ সালে নর্দান ইউনিভার্সিটি থেকে
MBA করেছি ULAB থেকে।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?

এখন আসলে অনলাইন ব্যাবসা এবং মেকাপ এর জগতে অনেক কম্পিটেশন।।  তাই প্রতিনিয়ত আমি নিজের মেকাপ স্কিল কে আরও  আপডেট করে যাচ্ছি। বিভিন্ন ব্রাইডাল কম্পিটিশন এ নিজে কে ইনভলভ করছি। গেল বছর এস এম একাডেমির এক ব্রাইডাল কম্পিটিশন এ প্রথম বিজয়ী ছিলাম আমি আমি নিজেও আমার স্টুডিও তে ব্রাইডাল  শুট এর ব্যাবস্থা করে থাকি।

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?

বর্তমানে করনাকালীন সময়ে আমাদের দেশে সব ব্যাবসায়ীদের অবস্থাই একটু খারাপ যাচ্ছে। আমার মেকাপ এর ক্লাইন্টস দের কে  অনেক নিয়ম মেন্টেইন করে তাদের সাথে কাজ করতে হচ্ছে। কিন্তু এরকম সিচুয়েশনে ও এত ভালো কাজ করে যাচ্ছি এ জন্ন্য আলহামদুলিল্লাহ

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?

নতুন উদ্যক্তাদের জন্য বলবো, দুনিয়া তে কোন কিছু অসম্ভব নয়। সব কিছু সম্ভব সুধু মনের শক্তি একটু শক্ত হতে হয়। আর নারী বলে অসহায় ভাবা টা ভুল। ঘরে বসেই নারীরা এখন অনেক কিছু করে যাচ্ছে। উপার্জন করে যাচ্ছে। যে কোন জিনিস করার আগে শক্ত ভাবে উদ্যোগ নিতে হবে, তাহলেই নিজে কে সফল উদক্তা হিসেবে ভবিষ্যতে দেখতে পাবেন। কিন্তু নিজের বিজনেস এ সৎ মনোভাব এবং সাহস রাখতে হবে। বাকি টা আল্লাহর ইচ্ছা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD