1. admin@digonterbarta24.com : admin :
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ইংল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পেল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ পটুয়াখালীতে নৌকার মনোনয়ন পেলো রাজাকার পুত্র ও সাবেক বিএনপি নেতা গোলসাছড়ি জনবল বৌদ্ধ বিহারে ১ম বারের মত দানোত্তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত বড়লেখায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে ৩টি প্রতিষ্টানকে জরিমানা কমলগঞ্জের সড়ক পাকা কনণের দাবিতে গ্রামবাসীর মানববন্দন হাজরাবাড়ি পৌর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়ির বীর মুক্তিযোদ্ধা মনু মিয়া’র রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন বাগেরহাটে রাস্তার পাশ থেকে নবজাতকের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার পথশিশুদের স্বপ্নের ঠিকানা স্বপ্নপুরী বাগেরহাটে জনতা ব্যাংক এর আয়োজনে রোড শো অনুষ্ঠিত

কুমিল্লার সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা “মীর সুমাইয়া”

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : সোমবার, ৩ মে, ২০২১
  • ৩৩৪ বার পঠিত

দিগন্তেরবার্তা২৪,ডেস্কঃ কুমিল্লার মেয়ে “মীর সুমাইয়া”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০২০ সাল থেকে চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” মীর সুমাইয়া”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন কুমিল্লার সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।কুমিল্লার মেয়ে ” মীর সুমাইয়া ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন দিগন্তের বার্তা ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?
আসসালামু আলাইকুম,আমি মীর সুমাইয়া,
আমি একজন মেয়ে এটাই আমার প্রথম পরিচয়,
তবে আমার কাজ হতে পারে আমার আলাদা একটি পরিচয়, বাবা-মার আদরের একটাই মেয়ে আমি, যেখানে অনেক ভালোবাসায় ঘেরা থাকলেও নিজের একটা আলাদা পরিচয় সব সময় খুঁজে বেড়িয়েছি, নিজে কিছু করতে চেয়েছি, সব সময় মনে হতো আমি পারবো, কেনই বা পারবো না? তাই সে চেষ্টায় এক পা এক পা করে এগিয়ে আসা,যেখানে আমার মায়ের সাপোর্ট ছিল সবচাইতে বেশি, পাশাপাশি স্বামীর কথা না বললেই নয়। তাই হয়তো আমি আজ একজন উদ্যোক্তা এবং ইউটিউবার।

উদ্যোক্তা আগ্রাহ কিভাবে তৈরি হলো?
ছোটবেলা থেকেই পোশাক ডিজাইন, আর্ট পেইন্টিং এর প্রতি খুব আগ্রহ ছিল, বলা চলে আমার মা সেই আগ্রহটাকে লালন করে বড় করেছে, এই ব্যাপারগুলোতে আমার মা আমাকে খুব উৎসাহ দিত,তাই পেইন্টিং এর উপর আমার শখটা বেশিই ছিল। অনলাইনে অনেকদিন থাকার পরেও কোথা থেকে বা কিভাবে শুরু করব বুঝতে পারছিলাম না। তখনই উই সন্ধান পেলাম, ওই এমন একটা প্ল্যাটফর্ম যেখানে দেশীয় পণ্য নিয়ে চোখ বন্ধ করে কাজ করা যায়। তখন আমার মনে হল   আমি হয়তো কিছু শুরু করতে পারি।

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?
আমার আইডল হিসেবে তেমন কেউ নেই, তবে আমার অনুপ্রেরণা আমার মা এবং আমার আমার স্বামী। তাদের সহযোগিতায় আমি এগিয়ে আসার সাহস পেয়েছি।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
আসলে সফলতা কতটুকু লাভ করেছে তা জানি না, আমি আমার ক্রেতাদের অনেক ভালোবাসা পেয়েছি, যদি এটাকে সফলতা বলে, তাহলে বলবো জি আলহামদুলিল্লাহ আমি সফল।

আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
আসলে মানুষের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তো অনেক কিছুই থাকে, হয়তো সে রকম আমারও আছে, তবে এখন আলহামদুলিল্লাহ আমার ছোট দুইটা বেবি আছে তাদের নিয়ে একটু একটু করে কাজটা এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। হয়তো কখনো এই সখ সাফল্যের একটা রূপ ধারণ করবে।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলুন?
আমার পড়াশোনা আসলে ২০১৮ সালেই ইতি টেনেছেন। ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কমপ্লিট করতে পারিনি। পড়াশোনার প্রতি পরিবার থেকে কোন বাঁধা ছিল না ঠিক-ই, তবে বেবি নিয়ে ঠিকমতো পড়াশোনা করে উঠছিল না।

আপনার চ্যালেঞ্জগুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
আসলে জীবনের প্রতিটা পদক্ষেপে পরীক্ষা হয়েছে,
এবেলা ও তার অন্যথা নয়। তবে সেই চ্যালেঞ্জের মোকাবেলা শক্তি আমার পরিবার যোগাতো।  সে শক্তি নিয়ে কাজ করতাম, যেহেতু নতুন উদ্যোক্তা সেখানে ক্রেতাদের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হওয়া টা খুব চ্যালেঞ্জিং ছিল। একটু একটু করে হয়তো তাদের বিশ্বাস জয় করতে পেরেছি। আমার মো বলে যে কোন কাজেই লেগে থাকতে হয় । তাহলেই সাফল্য পাওয়া যায়।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি কি?
আসলে পোশাকের ডিজাইন  প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হতে থাকে, সে ক্ষেত্রে প্রডাক্ট একই থাকলেও ডিজাইন ভিন্ন হয়, আমার প্রোডাক্ট এর মধ্যে রয়েছে হ্যান্ড পেইন্ট: শাড়ি, পাঞ্জাবি, দোপাট্টা, থ্রি পিস, কুর্তি, হিজাব, টি-শার্ট, বিছানার চাদর।

বর্তমানে কভিড-১৯ এ ই-কমার্স?

এখন সময়টা যেহেতু একটা সীমাবদ্ধতায় কাটাতে হয়, এই সময় ঘরে বসে কেনাকাটা করা আমাদের জন্য নিরাপদ এবং সহজ।তাই ক্রেতারা এখন অনলাইনেই কেনাকাটা করতে বেশি আগ্রহী।

পরিশেষে শ্রোতাদের তাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?

তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই যেকোনো কাজেই শ্রম দিতে হবে, নিজের ইচ্ছেশক্তি টাকে মজবুত রাখতে হবে, সততা আর নিষ্ঠা থাকা অবশ্যই জরুরি, আমি চাই আমার মত হাজারো মেয়ের ইচ্ছে গুলো অনুপ্রাণিত হয়ে একটু একটু করে জেগে উঠুক। পাশাপাশি যাদের হ্যান্ড পেইন্ট, ব্লক প্রিন্ট কাজের প্রতি আগ্রহ রয়েছে। তাদের জন্য আমরা আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে পাশাপাশি আমাদের ফেসবুক গ্রুপে পেন্টিং ভিডিও টিউটোরিয়াল দিয়ে থাকি। যাতে সহজেই সবাই শিখতে পারেন। এই ভেবে যে হয়তো কোন একজনের তো সহযোগিতা হবে।  আমার ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক পেইজ নাম: LS Art Fashion.পরিশেষে বলতে চাই আমার জন্য দোয়া করবেন।আপনাদের সমর্থন এবং ভালোবাসা ছাড়া আমি কিছুই নই।আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD