1. admin@digonterbarta24.com : admin :
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নিরাপদ সড়ক উপহার দেয়া আমাদের সকলের দায়িত্বঃ উপ-পরিচালক জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস সিএমপি’র ট্রাফিক বিভাগের লিফলেট বিতরণ খামারপাড়া বিশ্বলতা জনকল্যাণ বৌদ্ধ বিহারে ৩২তম দানোত্তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত বেগম খালেদা জিয়া’র সুস্থতা কামনায় গাজীপুর মহানগর ছাত্রদলের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল নলছিটিতে আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস পালিত ফ্রেন্ডশিপ’র উদ্যোগে প্যারাভেট প্রশিক্ষণের সনদ বিতরণ রাঙ্গামাটিতে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত ভুলতা জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে হাইওয়ে পুলিশ ফাড়ির নানা কর্মসূচি পালিত শ্রীমঙ্গলে নিরাপদ সড়কের দাবিতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী শ্রীমঙ্গলে রামকৃষ্ণ সেবা আশ্রমে মৌন প্রতিবাদ

ঢাকার সফল সংগ্রামী নারী উদ্যোক্তা” মাহ্ জাবীন নুর( প্রমা)”

দিগন্তের বার্তা ২৪ ডেস্ক
  • সময় : রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ১৮৭ বার পঠিত

দিগন্তেরবার্তা২৪,ডেস্কঃ ঢাকার মেয়ে “মাহ্ জাবীন নুর( প্রমা)”।যিনি একজন সফল উদ্যোক্তা, সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০১৮ সাল থেকে চালিয়ে যান জীবন সংগ্রামের একটি অংশ অনলাইন ব্যবসা।তবে থেমে থাকেননি তিনি। দুর্গম পথ এবং ব্যার্থতার গ্লানি উপেক্ষা করে আজ সাফল্যর দ্বারপ্রান্তে ” মাহ্ জাবীন নুর( প্রমা)”।হাটি হাটি পা পা করে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে তিনি হয়ে উঠেন ঢাকার সফল নারী উদ্যোক্তা।

”উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প নিয়ে টেকজুমের এবারের আয়োজন।ঢাকার মেয়ে ” মাহ্ জাবীন নুর( প্রমা) ” এর উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন দিগন্তের বার্তা ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো-

আপনার সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন ?
আসসালামু আলাইকুম।আমি মাহ্ জাবীন নুর( প্রমা )এবং একজন মুসলিম ঘরের সন্তান। আমার গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ এবং আমি ছোট থেকে বড় হয়েছি মোহাম্মদপুর তাজমহল রোড এ আমি পরিবারের বড় সন্তান। আমার ছোট্ট দুই বোন আছে । আমি এসএসসি শেষ করেছি মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি থেকে এবং এইচএসসি শেষ করেছি লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে এখন আমি মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজ এর মার্কেটিং শাখায় অনার্স চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী।

উদ্যোক্তা আগ্রহ কিভাবে তৈরি হলো ?
ছোট থেকে একটু স্বাধীনচেতা মনোভাব নিয়ে বড় হয়েছি । স্কুল লাইফ থেকেই সব সময় চিন্তা করতাম যে আমি ব্যবসা করবো কিন্তু বাসা থেকে সেভাবে সাপোর্ট না পাওয়ায় সেই সাহসটা হয়ে উঠেনি  । এইচএসসি পাশ করার পর দুই বছর হোম টিউটর হিসেবে ছিলাম । ২০১৭ সালে একটা অফিসে জয়েন করলাম কিন্তু ব্যবসা করার ঝোঁকটা তখনো কমেনি তাই চাকরির পাশাপাশি ২০১৮ সাল থেকে ঠিক করলাম টিউশনের জমানো টাকা আর চাকরির কিছু টাকা দিয়ে অনলাইন বিজনেস শুরু করি তখনই আমার খুব কাছের একজন বান্ধবী বলল যে আমি ইউএসএ চলে যাব তুই আমার পেইজটা চালা ঠিক তখনই ব্যবসা করার সেই সুপ্ত প্রতিভা আরো গভীরভাবে জেগে উঠলো । ফেসবুকে “Stylish zone by proma” এ পেইজ নিয়ে আমার যাত্রা শুরু ।

আপনি এই অনলাইন বিজনেসে কাকে আইডল হিসেবে দেখছেন?
আমি অনলাইনে বিজনেসে আইডল হিসেবে তেমন কেউ নেই কিন্তু ফারিয়া নেওয়াজ আপুর লাইভ দেখতাম আর ভাবতাম যে আমার ও ইনশাআল্লাহ উনার মতো আমিও একদিন অনেকগুলো শোরুম দিবো আমাকেও সবাই চিনবে । তার লাইভ দেখে দেখেই অনলাইন ব্যবসায়ের আরো আগ্রহ বাড়লো ।

কতটুকু সফলতা লাভ করেছেন বলে মনে করেন?
সফলতা বলতে আল্লাহর রহমতে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই খুব ভালো রেসপন্স পেয়েছিলাম কিন্তু পারিবারিক  বাধ্যবাধকতার জন্য ব্যবসায় মাঝ পথেই ছাড়তে হয়েছিল কিন্তু সবসময়ই চিন্তা ছিল সুযোগ পেলেই আবার আমি আমার পেইজ নিয়ে যাত্রা শুরু করবো ঠিক যেমন কথা তেমন কাজ ২০২১ এর জানুয়ারি মাস থেকে আবারো Stylish Zone By proma পেইজের যাত্রা নতুন করে শুরু করলাম। ইনশাআল্লাহ পেইজের নাম শুনলেই যখন আমাকে  চিনবে তখন বুঝবো আলহামদুলিল্লাহ আমি সফল।

 আপ নার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?

ভবিষ্যত পরিকল্পনা হচ্ছে অনলাইনের পাশাপাশি নিজের পুঁজি দিয়ে নিজের একটি শোরুম দেয়ার এবং আমার পেইজকে সবাই একটা ব্র্যান্ড হিসাবে পরিচিত করে তোলার ।

আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা বলুন?
আমি মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল থেকে এস.এস.এসি তে জিপিএ ৫.০০ এবং লালমাটিয়া মহিলা কলেজ থেকে এইচ.এস.সি তে জিপিএ ৪.৭৫  পেয়ে পাশ করেছি । এখন মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজে মার্কেটিং বিভাগের অনার্সের ৪র্থ বর্ষের ছাত্রী।

আপনার চ্যালেঞ্জ গুলো কিভাবে মোকাবেলা করেছেন?
চ্যালেঞ্জ বলতে আমার জন্য ছিল আমার পরিবার । পরিবার থেকে কখনোই অনলাইন ব্যবসায়ের জন্য সাপোর্ট পাইনি কিন্তু তারপরও নিজের চেষ্টায় নিজের সপ্নটাকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছি আল্ হামদুলিল্লাহ । এবং ২য় চ্যালেঞ্জ হলো ডেলিভারি কম্পানির সাথে ডীল করা তাই এখন নিজের প্রডাক্ট ঢাকার ভিতর নিজের মানুষ দিয়েই ডেলিভারি দিচ্ছি ।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট গুলো কি কি?
আমি প্রথমে শুধু এমব্রোডারী এবং কারচুপি নিয়ে কাজ করতাম কিন্তু এখন নতুন কালেকশন হলো ইন্ডিয়ান এবং পাকিস্তানি জামা , দেশীয় শাড়ী এবং সাথে আছে গহনা।

বর্তমানে কভিড১৯ এ ই-কমার্স?
কোভিড ১৯ যদিও কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা কিন্তু তারপরও  সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে চেষ্টা করছি যাতে ব্যবসাটাকে আরো দ্রুত সম্প্রসারণ করা যায় কিনা এবং যেহেতু উদ্যোক্তার একটা বড় গুন  হচ্ছে যেকোনো পরিস্থিতিতে কে কাজে লাগানো ঠিক আমিও সেটাই করছি যেহেতু এখন মহামারির জন্য সবাই বের হচ্ছে না এবং শপিং মল গুলো থেকেও বিরত থাকছে তাই  সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় নিত্য নতুন জামা আমার জামা কাপড় থেকে শুরু করে শাড়ি গহনা ম্যাচিং করে সবকিছু আমি আমার পেইজেই রাখছি । যাতে স্বাধ্যর মধ্যে একপেইজ থেকেই  নিতে পারে।

পরিশেষে স্রোতাদের উদ্দ্যেশ্যে কিছু বলুন?
সবাইকে এটাই বলবো নিজের ইচ্ছা শক্তিকে মজবুত করতে হবে এবং সৎ নিয়তে নিজের উপর বিশ্বাস রেখে এগিয়ে যেতে হবে। আর বিশেষ একটা কথা আমাদের প্রতিটা নারীরই উচিত নিজের একটা সুন্দর পরিচয় গড়ে তোলা । কারো পরিচয়ে নই , নিজের পরিচয়ে পরিচিত হতে হবে । তাই  আমরা যারা উদ্যোক্তারা নিজের একটা পরিচয় গড়ে তোলার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি আমাদেরকে একটু সাপোর্ট করবেন এটাই আপনাদের থেকে কাম্য । আসুন সবাই সবার ব্যবসায়কে সম্মান করি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দিগন্তের বার্তা ২৪
Theme Customized BY Theme Park BD